তামিম এবার কন্যার বাবা                 নগরীর লালবাজারে আবাসিক হোটেলে মেয়রের অভিযান                 নগরীতে অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রির দায়ে ৫ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা                 শাবিপ্রবিতে শূন্য আসনে ভর্তি কার্যক্রম শুরু                 বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের পণ্য পরিবহন ধর্মঘটের ডাক                 মালিতে জঙ্গি হামলায় ২৪ সেনা নিহত                 টানা তৃতীয় সেঞ্চুরিতে হৃদয়ের বিশ্ব রেকর্ড                
৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ ২১শে নভেম্বর, ২০১৯ ইং বৃহস্পতিবার দুপুর ২:১৩ হেমন্তকাল

 

 

 

‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে আজীবন মানুষের সেবা করতে চাই’

প্রকাশিত হয়েছে : 2:15:53,অপরাহ্ন 30 October 2016 |
এ সংবাদটি পড়া হয়েছে 2,831 বার
‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে আজীবন মানুষের সেবা করতে চাই’

মো. আলী আকবর চৌধূরী কোহিনূর, শনিবার, ২৯ অক্টোবর ২০১৬ :: নিজাম উদ্দিন আল মিজান । সিলেটের কানাইঘাট পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র । ব্যক্তি হিসেবে তার আরেকটি পরিচয় রয়েছে । আর তা হলো- তিনি কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক । দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের ভোটে তিনি এ পদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন । কানাইঘাট পৌরবাসীর অভিভাবকের দায়িত্বে থাকার পাশাপাশি দেশের বৃহৎ রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে আসীন হলেও তার মাঝে নেই কোনো অহংবোধ । দলের নেতাকর্মী কিংবা পৌরবাসী সবার সাথে রয়েছে তার সুনীবিড় সম্পর্ক । কানাইঘাটবাসীর প্রিয় এ মানুষটি যখনই কারো কোনো সমস্যার কথা শুনতে পান তখনই কালবিলম্ব না করে দ্রুত ছোটে যান সমস্যার মুখোমুখি মানুষটির পাশে, প্রচেষ্টা চালান সমস্যা সমাধানের । নিজের স্বভাবসুলভ আচরণে সবাইকে আপন করে নেওয়া নিজাম উদ্দিন আল মিজানকেও নিজেদের হৃদয়ের গহীনে ধরে রেখেছেন কৃতজ্ঞ জনতা । আর এর প্রমাণও পাওয়া যায় কানাইঘাট পৌরসভার বিগত নির্বাচনে । বাঘা বাঘা প্রার্থীদের সাথে ভোটযুদ্ধে নামা নিজাম জনরায়েই গলে পড়েন বিজয়ের মালা । জননন্দিত এ মেয়র ও ত্যাগী নেতা ওপেননিউজবিডিডটকম’র মুখোমুখি হয়েছিলেন সম্প্রতি । খোলামেলা কথা বলেন পৌরসভা ও পৌরবাসীর সমস্যা-সম্ভাবনার পাশাপাশি রাজনৈতিক বিষয়সহ নিজের বিভিন্ন কর্মপরিকল্পনা নিয়েও ।
কথোপকথনের শুরুতেই নিজাম উদ্দিন আল মিজান শ্রদ্ধা জানান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি । শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশাপাশি কানাইঘাট পৌরবাসীর প্রতিও ।
নিজাম উদ্দিন আল মিজান বলেন, ছোটবেলা থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করে আসছি । স্বপ্ন দেখেছি তার গড়া রাজনৈতিক দলের একজন আদর্শ কর্মী হওয়ার । তাইতো ছাত্রজীবনেই যোগদেই দেশের বৃহৎ ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগে । সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মুরারী চাঁদ (এমসি) কলেজে অধ্যয়নকালে প্রিয় সংগঠনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করি । তিনি বলেন, অনেক বাধা-বিপত্তি এসেছে; কিন্তু নিজে কখনো বঙ্গবন্ধুর আদর্শ থেকে বিচ্যূত হইনি । এগিয়ে চলেছি সব প্রতিবন্ধকতাকে পেছনে ফেলে । আর আমার কর্মের ফলও আমি পেয়েছি প্রিয় সংগঠন থেকে । ২০০৫ সালে তৃণমূলের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি কানাইঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক । ২০১৩ সালে পাওয়া যুগ্ম আহবায়কের দায়িত্বে আছি এখনো ।
নিজাম উদ্দিন আল মিজান বলেন, রাজনৈতিক অঙ্গনে কাজ করতে গিয়ে দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের যেমন অকুণ্ঠ সমর্থন ও সহযোগিতা পেয়েছি; তেমনি প্রিয় কানাইঘাটবাসীর ¯েœহ-ভালোবাসায়ও ধন্য হয়েছি আমি । তাদের প্রেরণায়ই আমি এগিয়ে চলেছি নিরন্তর । প্রচেষ্টা চালিয়েছি এলাকাবাসীর সেবা করার । তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বুকের মাঝে আমি যে স্বপ্ন লুকিয়ে রেখেছিলাম তার বাস্তব রূপও দিয়েছেন প্রিয় কানাইঘাট পৌরবাসী । ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিপুল ভোটে তারা আমাকে মেয়র নির্বাচিত করেছেন, সুযোগ দিয়েছেন তাদের সেবা করার ।
মেয়র নিজাম আরো বলেন, নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই পৌরসভা ও পৌরবাসীর উন্নয়নে প্রাণপণ চেষ্টা চালাচ্ছি । মাত্র ৫ মাসে পৌরসভায় করা হয়েছে প্রায় ৪ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ । এসবের মধ্যে রয়েছে সড়ক, ব্রিজ-কালভার্ট, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, ড্রেনেজ ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন কাঠামো উন্নয়ন কাজ । প্রতিটি ক্ষেত্রে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের গৃহীত উন্নয়ন কাজের ছোঁয়া কানাইঘাটেও লেগেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, কানাইঘাট জিরো পয়েন্ট হতে পুরো পৌরসভার রাস্তা ১২ ফুট থেকে বাড়িয়ে ৫২ ফুট করা হয়েছে । নির্মাণ করা হয়েছে ডিভাইডার । ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে থানা পয়েন্ট থেকে শাহবাগ পর্যন্ত ৪.২৫ কি.মি রাস্তা পাকা করণের জন্য । নির্মাণ কাজ চলছে ৫টি ব্রিজেরও । এসব কাজ চলতি অর্থবছরে সম্পন্ন হবে । তাছাড়া ৫টি কালভার্ট এবং স্থানীয় ২টি বড় বাজারের (চতুলবাজার ও চতুল ঈদগাহ বাজার) রাস্তা আরসিসি ঢালাই করার জন্য যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে আবেদন জানিয়েছি । দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় সংস্কার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন উল্লেখ করে তিনি জানান, এ কাজের জন্য ব্যবহৃত বালু, পাথর ও ডাস্ট’র অধিকাংশই স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বিনা মূল্যে দিয়েছেন ।
পানীয় জলের সমস্যা সমস্যা মেটাতে মাস্টার প্লান গ্রহণ করা হয়েছে জানিয়ে নিজাম বলেন, এ কাজটি প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে । তবে পৌরবাসীকে ফিল্টার দিয়ে পানি সরবরাহ করার পদক্ষেপটি প্রক্রিয়াধীন । তিনি বলেন, বিগত রমজানে কানাইঘাট বাজারে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা হয়েছে পৌরসভার পক্ষ থেকে । আশা করছি আগামি রমজানে ফিল্টার দিয়ে পানি সরবরাহ করা হবে । তবে বর্তমানে ড্রিপ টিউবওয়েল দিয়ে বাজারে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে ।
বর্ষায় পৌরবাসীর অন্যতম সমস্যা জলাবদ্ধতা নিরোসনের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখছেন জানিয়ে পৌর মেয়র নিজাম বলেন, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে । ইতোমধ্যে ড্রেন পরিষ্কারে কাজও করা হয়েছে । তবে পুরো পৌর এলাকার এ কাজ সম্পন্ন করতে কিছু সময়ের প্রয়োজন ।
তিনি বলেন, পৌরবাসীর স্বাস্থ্যসেবার উন্নয়নে কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে । পৌর এলাকায় বসবাসকারী ৬০ বছরের বেশি বয়সি লোকদের হেলথ স্মার্ট কার্ড দেওয়া হবে । তাছাড়া মা ও শিশুর উন্নত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে করণীয় সম্পর্কে ভাবা হচ্ছে । শিক্ষাকে উন্নয়নের প্রধান হাতিয়ার উল্লেখ করে নিজাম বলেন, কানাইঘাট পৌরসভার ঘরে ঘরে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়া হবে । সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চালু করা হবে ডিজিটাল পদ্বতি । বর্তমানে পৌরসভার পক্ষ থেকে রামপুর পৌর প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মহেশপুর প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালিত হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, কানাইঘাট পাবলিক হাইস্কুলকেও আর্থিক সহায়তা করা হয় পৌরসভা থেকে । শিক্ষার মান উন্নয়নে কানাইঘাটের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলামকে আলোচনার মাধ্যমে কনসালটেন্ট নিয়োগ দেয়ার চিন্তাভাবনা চলছে বলেও জানান নিজাম উদ্দিন আল মিজান । পৌর মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণের পর নিজাম উদ্দিনের করা প্রথম কাজটি ছিল পৌর এলাকার সকল মসজিদ-মন্দিরে অনুদান দেওয়া । ওই কাজের পর ঐতিহ্যবাহী কানাইঘাট দারুর উলুম মাদ্রাসাসহ সকল মসজিদ-মাদ্র্রাসার উন্নয়ন কাজের পাশাপাশি মন্দিরসহ অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানেরও অনেক কাজ করেছেন বলে জানান তিনি ।
কানাইঘাট এখন শান্তির শহর উল্লেখ করে মেয়র বলেন, এক সময় ছিল; যখন এলাকায় ঘটতো একের পর এক আইনবিরোধী কার্যক্রম । মারামারি-হানাহানি যেন ছিল নিত্যদিনের ঘটনা । এখন আর সে পরিবেশ নেই । সবাই এখন সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছেন । গভীর রাতেও মানুষ চলাচল করতে পারে নির্বিঘেœ। পৌরবাসীর যথাযথ নাগরিক অধিকার নিশ্চিত করতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন জানিয়ে তিনি বলেন, প্রতিটি নাগরিক সেবা দ্রুততার সাথে দেওয়া হচ্ছে । তবে সুশৃঙ্খল ও সুন্দরভাবে তা গ্রহণের জন্য সবার প্রতি আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, সবাই সহযোগিতা করলে পৌরসভার প্রতিটি কাজে আরো গতি আসবে । পৌরসভা থেকে প্রত্যেক নাগরিকের সব তথ্য সম্বলিত ডিজিটাল জন্ম সনদ, মৃত্যু সনদ, উত্তরাধীকার সনদ চাহিবামাত্র প্রদান করা হবে ।
মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণকালে পৌরসভায় কয়েক কোটি টাকা ঋণ/ঘাটতি ছিল জানিয়ে তিনি বলেন, বর্তমানে তা অনেকটা কাটিয়ে উঠেছি । এক সময় পৌর কর আদায়ের হার ছিল ১২/১৩ শতাংশ । বর্তমানে কর আদায়ের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৬ শতাংশে ।
বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের প্রশংসা করে নিজাম উদ্দিন বলেন, এক সময় বাংলাদেশকে নিয়ে অনেকে অনেক নেতিবাচক কথা বলেছে । কিন্তু আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ধাপে ধাপে এগিয়ে যাওয়া এ দেশের প্রশংসায় এখন পঞ্চমুখ পুরো বিশ্ব । কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ প্রতিটি ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে । বিশেষ করে বয়ষ্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, পঙ্গু, প্রতিবন্ধী ও মাতৃত্ব ভাতাসহ মা ও শিশু স্বাস্থ্য ও দারিদ্র বিমোচনে সরকারের গ্রহীত পদক্ষেপ দেশে-বিদেশে প্রশংসিত হচ্ছে । আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে সরকারের এসব পদক্ষেপকে যুগান্তকারী বলে আমি মনে করি । নিজেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন তৃণমূল কর্মী হিসেবে উল্লেখ করে নিজাম বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে নিয়ে আমরা গর্বিত । গণতন্ত্রের মানষকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা শিশু শীর্ষেন্দুর পত্রের উত্তর ও তার আবদার অনুযায়ী একটি বড় নদীতে ব্রিজ নির্মাণের আশ্বাস দিয়ে দায়িত্ববোধ ও মহানুভবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন । প্রধানমন্ত্রীর এমন পদক্ষেপে অন্য শিশুরাও উৎসাহিত হবে । তিনি বলেন, শুধু শীর্ষেন্দুর চাওয়া নয়; আমাদের প্রিয় নেত্রী প্রতিটি শিশু, প্রতিটি মানুষের প্রত্যাশা অনুধাবন করতে পারেন । আওয়ামী লীগের একজন কর্মী হিসেবে তার সাহসিকতা ও কর্মস্পৃহার জন্য শেখ হাসিনার প্রতি জানাই শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা । সাধুবাদ জানাই একজন মেয়র হিসেবে ।
নিজেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের একজন ‘সৈনিক’ হিসেব আখ্যায়িত করে নিজাম উদ্দিন আল মিজান বলেন, জীবনের শুরুতে বাংলা মায়ের সেই সূর্যসন্তানের আদর্শ বুকে ধারণ করেছি । সারা জীবন সে আদর্শ লালন করে মানুষের সেবা করতে চাই । একটি উন্নত ও মডেল পৌরসভায় রূপ দিতে চাই প্রিয় কানাইঘাটকে ।

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  • 991
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    991
    Shares



AD

 

 

 

 

 

 

 

devolop ওয়েব হোম বিডি Mobile: 01711-370851