সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান আর নেই                 লকডাউনের নির্দেশনা পায়নি প্রশাসন : রেড জোন সিলেট                 বীর মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুতে জেলা ইউনিট কমান্ড ও স্বেচ্ছাসেবক কমিটির শোক                 আজ থেকে খুলছে ১৮ মন্ত্রণালয়ের অফিস : কাজ চলবে সীমিত                 মহানগর যুবলীগের সম্পাদক মুশফিক জায়গীরদারের ইফতার বিতরণ                 ইনজেকশন পুশ করার ৩ ঘন্টার মধ্যে সুস্থ করোনা আক্রান্ত !                 খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায়দের পাশে বিএনপি নেতা ছাত্তার                
২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ ১৬ই মে, ২০২১ ইং রবিবার রাত ৯:৪০ গ্রীষ্মকাল

 

 

 

অধিগ্রহণে ক্ষতিপূরণ হবে জমির দামের তিনগুণ

প্রকাশিত হয়েছে : ৪:৩৮:৩০,অপরাহ্ন ০৫ ডিসেম্বর ২০১৬ |
এ সংবাদটি পড়া হয়েছে 361 বার
অধিগ্রহণে ক্ষতিপূরণ হবে জমির দামের তিনগুণ

ওপেননিউজ ডেস্ক :: জমি অধিগ্রহণে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ দামের দেড়গুণ থেকে বাড়িয়ে তিনগুণ করতে নতুন আইন প্রণয়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ও হুকুমদখল আইন, ২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।
সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের বলেন, এখন পর্যন্ত ভূমির ক্ষতিপূরণ দেড় গুণের মধ্যে আছে, নতুন আইন হলে সেটা তিনগুণ হবে।
“অর্থাৎ, কোনো ভূমির দাম এক কোটি টাকা হলে তার সঙ্গে আরও দুইশ পারসেন্ট যুক্ত হয়ে তিন কোটি টাকা হবে।”
ক্ষতিপূরণ দেওয়ার সময় ১২ মাসের জমি কেনাবেচার দলিলের গড় বিবেচনায় নিয়ে জমির দাম নির্ধারণ করা হবে বলে জানান শফিউল।
এতোদিন জমি অধিগ্রহণের সময় ক্ষতিপূরণ দেওয়া হত ১৯৮২ সালের একটি অধ‌্যাদেশ অনুসরণ করে। সামরিক শাসনের সময় জারি করা ওই অধ‌্যাদেশ উচ্চ আদালতের নির্দেশে বাংলা করে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ বাড়িয়ে এই নতুন আইন হচ্ছে বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান।
তিনি বলেন, স্থাবর সম্পত্তি অধিগ্রহণ ও হুকুমদখল আইনের খসড়া আরও যাচাই করে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন‌্য উপস্থাপন করতে আইনমন্ত্রীকে দায়িত্ব দিয়েছে মন্ত্রিসভা।
আইনটি ‘জটিল’ বিবেচনা করে খসড়া চূড়ান্ত করার জন‌্য আইনমন্ত্রীকে প্রধান করে ভূমি সচিব ও প্রতিরক্ষা সচিবকে রেখে একটি কমিটিও করে দেওয়া হয়েছে। এই কমিটিতে প্রয়োজনে আরও সদস‌্য নেওয়া যাবে।
“আইনটি ব্যাপকভাবে জনস্বার্থ সম্পৃক্ত হওয়ায় আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে আইনমন্ত্রীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে,” বলেন শফিউল।
তিনি জানান, কোন উদ্দেশ্যে ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে তা স্পষ্ট করতে আইনে ‘পাবলিক পারপাস’ ও ‘পাবলিক ইন্টারেস্ট’- শব্দ দুটোর সংজ্ঞা ও বিশ্লেষণ আইনে সন্নিবেশিত করতে বলা হয়েছে।
“ওই শব্দ দুটি আইনের খসড়ায় যেভাবে আনা হয়েছে তাতে বিস্তারিত বোঝা যায় না। হাই কোর্টের নির্দেশনার আলোকে বিস্তারিতভাবে সবগুলোকে একসাথে করতে বলা হয়েছে।”

সংবাদটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  



AD

 

 

 

 

 

 

 

devolop ওয়েব হোম বিডি Mobile: 01711-370851